ম্যান বুকার প্রাইজ শর্টলিস্ট ২০২০

ম্যান বুকার প্রাইজ শর্টলিস্ট ২০২০ [Bangla Essay]

ম্যান বুকার প্রাইজ শর্টলিস্ট ২০২০:

 

১।দিস মউর্নেবল বডি” – সিটসি ড্যাঙ্গারেম্বা

২।দ্যা নিউ উইল্ডারনেস” – ডায়েন কুক 

৩।দ্যা শেডো কিং” - মাজা মেঙ্গিস্টে

৪।রিয়েল লাইফ” - ব্র্যান্ডন টেইলর 

৫।শাগি বেইন” - ডগলাস স্টুয়ার্ট

৬।বার্ন্ট সুগার” - অবনী দোশি

 

এই বছরের সংক্ষিপ্ত তালিকা চারটি অভিষেক উপন্যাসের জন্য উল্লেখযোগ্য, যার মধ্যে জিম্বাবুয়ের লেখক সিটসি ড্যাঙ্গারেম্বা আছেন, যাকে জুলাই মাসে হারারেতে সরকারবিরোধী বিক্ষোভের জন্য গ্রেফতার করা হয়। লেখকদের অধিকাংশই এ্যামেরিকান বা এ্যামেরিকায় অবস্থিত, এবং বুকার যুক্তরাজ্যপ্রদত্ত পুরস্কার হওয়া সত্ত্বেও, শুধুমাত্র একজন ব্রিটিশ লেখক এই তালিকায় স্থান করে নিয়েছেন যার নাম ডগলাস স্টুয়ার্ট। ৫০,০০০ পাউন্ডের পুরস্কারের জন্য লড়াই করা উপন্যাসের মধ্যে রয়েছে থ্যাচার যুগের গ্লাসগোর শ্রমিক শ্রেণীর নারীদের জন্য গাথা, ৩০-এর দশকে ইথিওপিয়ার নারী মুক্তিযোদ্ধাদের কাহিনী, এবং জলবায়ু পরিবর্তনের দ্বারা বিধ্বস্ত এ্যামেরিকায় মাতৃত্ব ও সম্প্রদায়ের একটি ডিস্টোপিয়ান দর্শন। 

 

“দিস মউর্নেবল বডি” – সিটসি ড্যাঙ্গারেম্বা

 

লেখক হওয়ার পাশাপাশি ড্যাঙ্গারেম্বা একজন চলচ্চিত্র নির্মাতা, নাট্যকার এবং আফ্রিকা ট্রাস্টের অগ্রগতির জন্য ইন্সটিটিউট অব ক্রিয়েটিভ আর্টসের পরিচালক। 

 

এই উপন্যাসের প্রধান চরিত্র তাম্বুদজাইকে একজন এ্যান্টি-হিরো হিসেবে সবচেয়ে বিবেচনা করা হয়, যদিও সে নিজেকে একজন ব্যর্থ ব্যক্তি হিসেবে বর্ণনা করে। যখন আমরা তার দেখা পাই, তার বয়স ৪০ বছর, বেকার এবং জিম্বাবুয়ের হারারেতে একটি ইয়ুথ হস্টেলে বাস করে, যদিও সে স্কুলে ভালো করেছে এবং বিজ্ঞাপনে চাকরির অভিজ্ঞতা আছে। তার জীবনের নিম্নমুখীতা তাম্বুদজাইয়ের জন্য ক্রমাগত বিভ্রান্তির একটি উৎস: তার জীবনের চিত্রনাট্য এখনো পরিকল্পনা করা হয়নি।  

 

গল্প ৯০-এর দশক ঘিরে, যখন স্বাধীনতার চাকচিক্য এবং প্রতিশ্রুতি ম্লান হয়ে গেছে, যদিও যুদ্ধের ফলে সৃষ্ট শারীরিক এবং মানসিক দাগ রয়ে গেছে। তাম্বুদজাইয়ের সমস্যাগুলো সামগ্রিকভাবে দেশের গতিপথের সমান্তরাল হিসেবে পড়া যেতে পারে; তার বেদনা দেশবাসী এবং নারীদের বেদনা। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে যে গল্পটি একজন নারীকে অনুসরণ করে, কোনও পুরুষকে নয়, তার মানে আমরা তার জীবনে বর্ণবাদ এবং লিঙ্গবৈষম্যের দ্বন্দ্বের প্রভাবও দেখতে পাই। এটি একটি অস্থিতিশীল পাঠ, বিশেষ করে যখন তার হতাশা বিষাদে পরিণত হয়, কিন্তু এটি একটি চিত্তাকর্ষক অন্তর্দৃষ্টি এই অর্থে যে বইটি পড়লে বোঝা যাবে কিভাবে জিম্বাবুয়ের রাজনৈতিক শক্তি সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন জীবনকে প্রভাবিত করে।  

 

“দ্যা নিউ উইল্ডারনেস” – ডায়েন কুক 

 

কুকের ডিস্টোপিয়ান অভিষেক উপন্যাস মানবতা সম্পর্কে বড় প্রশ্ন করে।

 

দ্যা নিউ উইল্ডারনেসএকটি অবিস্মরণীয় দৃশ্য দিয়ে শুরু হয় যখন একজন নিঃসঙ্গ মহিলা একটি বন্য প্রাকৃতিক পরিবেশের মাঝখানে একটি মৃত শিশুর জন্ম দেয়। আমরা শীঘ্রই জানতে পারি যে মহিলাটি হচ্ছে বিয়া, একজন প্রাক্তন ইন্টেরিয়র ডেকোরেটর, যে দূষিত শহর থেকে পালিয়ে গেছে অরণ্য রাজ্যে একটি অনিশ্চিত নতুন জীবনের জন্য। বিয়া এবং তার পাঁচ বছর বয়সী মেয়ে অ্যাগনেস দূষিত শহর ছেড়ে চলে গিয়েছিলো যখন বাতাস এতোটাই দূষিত হয়েছিলো যে অ্যাগনেস শ্বাস নিতে পারছিলো না। যখন আমরা তাদের সাথে যোগ দেই, মা এবং মেয়ে কমিউনিটির সাথে চার বছর কাটিয়েছে; একটি পরীক্ষা যা শুরু হয়েছিলো ২০ জন প্রাক্তন নগরবাসীকে নিয়ে যারা জঙ্গলের শেষ অবশিষ্ট এলাকায় বসবাস করে। চার বছর পরে, কমিউনিটির মাত্র ১১ জন সদস্য বাকি আছে, এবং যে কোনও দলের মতো, সেখানে বিরক্তি, প্রেমের ভান এবং মারামারি হয়। ডায়েন কুক, এমন এক পরিবেশে ভেঙ্গে পড়া দলের গতিশীলতা তুলে ধরতে দক্ষতা দেখিয়েছেন যেখানে এক মুহূর্তের উদাসীনতা মারাত্মক পরিণতি বয়ে আনতে পারে। একটি প্রবাহিত নদী, একটি বন্য ধুলো ঝড় ইত্যাদি নিয়ে প্রকৃতি-মা আঘাত হানতে সদা প্রস্তুত।দ্যা নিউ উইল্ডারনেসএকটি শক্তিশালী পাঠ যা মানবতা সম্পর্কে বড় প্রশ্ন করে! 

 

“দ্যা শেডো কিং” - মাজা মেঙ্গিস্টে 

 

দ্যা শেডো কিং” - মাজা মেঙ্গিস্টের দ্বিতীয় উপন্যাস।

 

মাজা মেঙ্গিস্টে হলেন প্রথম ইথিওপিয়ান বংশোদ্ভূত ব্যক্তি যিনি বুকার পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত হন। উপন্যাসটি, ১৯৩৫ সালের ইতালীয় আগ্রাসনের পটভূমিতে লিখিত, এবং সামান্য পরিচিত ইথিওপিয়ান নারী যোদ্ধাগণ কিভাবে পুরুষদের পাশাপাশি মুসোলিনির বাহিনীর বিরুদ্ধে তাদের দেশকে রক্ষা করার চেষ্টা করেন সেটার ইতিহাস তুলে ধরে। গল্পটি প্রাথমিকভাবে তরুণ দাস হিরুটের প্রিজমের মাধ্যমে উন্মোচিত হয়, যে সম্ভ্রান্ত শ্রেণীর দম্পতি কিদেন এবং অ্যাস্টারের বাড়িতে কাজ করে। এটা পরিষ্কার যে হিরুটের জীবনের মূল্য কম এবং অন্যদের সেবা করার বাধ্যবাধকতার বাইরে তার জীবনে তেমন উল্লেখযোগ্য কিছুই ঘটবে না। কিন্তু যুদ্ধের আবির্ভাবের সাথে সাথে তাকে সৈন্যদের জন্য রান্না এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ করার জন্য সামনের সারিতে নিয়ে যাওয়া হয়- এখানেই তার ভাগ্য বদলে যায় এবং সে একজন যোদ্ধা হয়ে ওঠে। এটি যুদ্ধ সম্পর্কে একটি আবেগপ্রবণ এবং দারুণ বই যার তাৎপর্য সম্ভবত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরবর্তী ভয়াবহতার মধ্যে হারিয়ে গিয়েছিলো। 

 

“রিয়েল লাইফ” - ব্র্যান্ডন টেইলর 

 

অভিষেক ঔপন্যাসিক ব্র্যান্ডন টেইলর একজন সমকামী, প্রাক্তন বায়োকেমিস্ট্রির ছাত্র।

 

ওয়ালেস, যার বয়স ২০ বা তার কাছাকাছি, একজন ছাত্র যে এ্যামেরিকান মিডওয়েস্টের একটি নামহীন বিশ্ববিদ্যালয়ে বায়োকেমিস্ট্রি ডিগ্রী সম্পন্ন করছে। সে একটি গবেষণাগারে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করে, সাবধানে নেমাটোড নামক কৃমি বা কেঁচোর মতন দেখতে প্রাণীর নতুন বংশ প্রজননের জন্য কাজ করে। এটা শান্ত, নির্জন কাজ, এবং ওয়ালেস মনে হয় যেখানেই যায়, তার সাথে সেই নির্জনতা বহন করে। যখন বন্ধুদের সাথে মেলামেশা করে, তখন সে অস্বস্তি অনুভব করে; মনেহয় সে যেন দূরবর্তী, আলাদা কেউ। একজন কালো, সমকামী মানুষ হিসেবে, সে চারপাশের মানুষের সাথে তার পার্থক্য গভীরভাবে অনুভব করে।  বইটি একটি গ্রীষ্মকালীন ছুটির দিনের পটভূমিতে লেখা, যখন ওয়ালেস একজন সহকর্মী ছাত্র মিলারের সাথে একটি নতুন সম্পর্ক শুরু করে। সম্পর্ক কখনও কখনও আবেগপ্রবণ এবং কোমল, কিন্তু একই সাথে বিভ্রান্তিকর এবং ভারসাম্যহীন হয়। মিলার জোর দিয়ে বলে যে সে সমকামী নয়, কিন্তু প্রবলভাবে ওয়ালেসকে অনুসরণ করে- যে তার নিজের কঠিন অতীতের প্রেতদের মোকাবেলা করছে। “রিয়েল লাইফ” লিখেছেন অভিষেক ঔপন্যাসিক ব্র্যান্ডন টেইলর, যিনি নিজে একজন সমকামী, প্রাক্তন বায়োকেমিস্ট্রির ছাত্র। টেইলর বলেন যে বইটি বর্ণবাদ এবং নির্যাতনের বিষয় উপস্থাপন করে এবং এর প্রথম খসড়া মাত্র পাঁচ সপ্তাহের মধ্যে লেখা হয়েছিলো। প্রথম উপন্যাস হিসেবে এটি বেশ সুন্দরভাবে লেখা হয়েছে। 

 

“শাগি বেইন” - ডগলাস স্টুয়ার্ট

 

শাগি বেইন১৯৮০ সালে গ্লাসগোর গুঁড়িয়ে ফেলা পাবলিক হাউজিং-এর পটভূমিতে রচিত।

 

এটি এমন একটি উপন্যাস যা পড়ার সময় মনে হবে যেন আপনি শুনতেও পাচ্ছেন: গ্লাসগোর উচ্চারণে ভারী এবং অতিরিক্ত শপথ গ্রহণের উপস্থিতি; বেকারত্ব এবং নিষ্কর্মা স্বামীদেরকে অভিশাপ দেওয়া ও খাদ্যের অভাব এবং একজন মহিলা যে আপনার পুরুষের দিকে বাজেভাবে তাকায়। এছাড়াও বিয়ারের গন্ধ, বাসি তেল, দারিদ্র্য এবং বিষণ্ণতা আছে।  কিন্তু যার জীবন এবং পরিবার উপন্যাসের কেন্দ্রে রয়েছে, সেই অ্যাগনেস বেইন নিশ্চিত করে যে তার বাড়ি সাজানো গোছানো আছে, চুল আঁচড়ানো এবং তার সৌন্দর্য এবং প্রাণবন্ততার উপস্থিতি বিদ্যমান। তার জীবন হতাশার সহিংসতা এবং একজন প্রাত্যহিক মদ্যপের গোপন মদ্যপানের দ্বারা গঠিত; তাকে তার স্বামী সদ্য বন্ধ হওয়া খনির পাশে একটি ভয়ানক শহরতলীতে ফেলে রেখে তার কালো ট্যাক্সিতে করে চলে গেছে। এটা আশির দশকের শুরুর দিকের স্কটল্যান্ড এবং থ্যাচারের নতুন বিশ্ব ব্যবস্থা। পাঠকগণ উপলব্ধি করেন বেঁচে থাকার জন্য সংগ্রাম, অন্যান্য নারীদের বিচার এবং পানীয়ের প্রলোভন। অ্যাগনেসের কনিষ্ঠ পুত্র শাগি এখনো তাকে ভালোবাসে, আর তার অন্যান্য ছেলেমেয়েরা কিভাবে পালানো যায় তার পথ খুঁজে। পুত্রের জীবনও সহজ নয়; কঠোর পরিবেশে একটি সমকামী ছেলে এবং মা সম্পর্কে তার দৃষ্টিভঙ্গিও বইটিকে রূপ দান করে। তাছাড়া, যখন এই সমস্ত ব্যক্তিদের চরিত্র এবং চ্যালেঞ্জ একটি দারুণ গল্প তৈরি করে, লেখার গঠন এবং কোমলতা এটিকে একটি অভিষেক উপন্যাস হিসেবে রোমাঞ্চকর এবং লক্ষণীয় করে তোলে।

 

“বার্ন্ট সুগার” - অবনী দোশি

 

দোশি ২০২০ সালের বুকার শর্টলিস্টে আরেকজন অভিষেক ঔপন্যাসিক।

  

মাতাগণ, কন্যারা এবং স্মৃতি এই তীক্ষ্ণ উপন্যাসে ঝুঁকির মধ্যে আছে; বইটির তরল শৈলী তার চকচকে কিনারা এবং সূচালো প্রান্তের চারপাশে ঘুরে বেড়ায়। এটা পড়তে প্রায় একটা কালজয়ী, বুদ্ধিদীপ্ত স্মৃতিকথার মতো লাগে বিশেষ করে যখন অন্তরা তার মা তারার মানসিক অসুস্থতা সামলে নিতে চেষ্টা করে। তারা সব কিছু ভুলে যাচ্ছেন, কিন্তু তার প্রাপ্তবয়স্ক মেয়েকে অপমান করার কথা তিনি ভুলেন না। প্রতিদিন মেয়েকে বিরক্ত করার ফলে মেয়েটির পাগল হবার অবস্থা! কিন্তু অন্তরার পুরো শৈশব এখানে একটি উল্লেখযোগ্য অংশ বটে- ভারতের পুনায় বেড়ে ওঠা, যেখানে শিশুটির অবহেলার ব্যাপারে 'সৌজন্যমূলক' কিছুই ছিল না। তারা দুজনেই একটি আশ্রমে সময় কাটিয়েছিল যেখানে তারা একজন গুরুর সেবায় মগ্ন ছিলেন। কিন্তু বর্তমানে, অন্তরার পক্ষে এই বিতর্কিত স্মৃতিগুলোতে তার ক্ষোভ প্রকাশ বা মধ্যস্থতা করা কঠিন, যখন তার মা তারা নিজেই মানসিকভাবে দূরে সরে যাচ্ছে। এই উপন্যাসটি শুধুমাত্র দুইজন নারীর মধ্যে দ্বন্দ্ব নয়। আমরা অন্তরার সাথে পরিচিত হই যখন সে তার বেড়ে ওঠা থেকে নিজেকে পুনর্গঠিত করে; সে যা চায় না তার চিহ্ন সরিয়ে ফেলে, কারণ সে বলে, “আমি একটি বাড়ি এবং ধূসরতা ও ধোঁয়াশামুক্ত বিবাহ চেয়েছিলামকিন্তু তার মা কণ্টকাকীর্ণ পরিস্থিতি সৃষ্টি করেন যা অন্তরা এড়াতে পারে না। এভাবেই গল্পটি এই জটিল, তীব্র সম্পর্কের দিকে ফিরে যায়; অস্পষ্ট অতীত দ্বারা সংজ্ঞায়িত বর্তমানের কাছে।

View kingofwords's Full Portfolio